মূল কারণ থেকে চোখ সরাতেই দিল্লি দূষণে কৃষকদের দায়ী করা হচ্ছে চাঞ্চল্যকর দাবি বন্দনা শিবার

0
74
দেশের রাজধানীতে বাতাস এখন বিষে ভরে গেছে। তাই নিয়ে চর্চা সর্বত্র। ইতিমধ্যে দিল্লি সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। অার এই বিষ বাতাসের জন্য দায়ী করা হচ্ছে হরিয়ানা ও পাঞ্জাবের কৃষকদের। তাদের পোড়ানো ফসলের গোড়া থেকেই নাকি এই দৃষণ।
তবে এই তত্ত্ব নাকচ করে দিয়েছেন বিশিষ্ট বিজ্ঞানী বন্দনা শিবা। তিনি জানিয়েছেন  পাঞ্জাব ও হরিয়ানা কৃষকদের দায়ী করার পিছনে রয়েছে বহুজাতিক কোম্পানির গভীর চক্রান্ত।অাসলে দিল্লি দূষণের জন্য মূল বিষয় থেকে দৃষ্টি ঘোরাতেই এই পরিকল্পনা। বিশিষ্ট  এই পরিবেশ বিজ্ঞানির দাবি পাঞ্চাব ও হরিয়ানায় এই পোড়ান হয় নভেম্বরে অার   দিল্লি পরিবেশ দূষণের মাত্রা চরমে পৌঁছয় ডিসেম্বরে। বন্দনা অভিযোগ করেছেন প্রথমে কৃষকদের রাসায়নিক সার ব্যবহার করতে উত্সাহিত করে স্বাভাবিক জীবচক্রটা  নষ্ট করেছে বহুজাতিক সংস্থা। এখন তারাই অাবার পরিবেশ দূষণের জন্য দায়ী করছে কৃষকদের।  জ্যাঙ্ক ফুড , রাসায়নিক ও জ্বালানি তেলের ব্যবহারকে পরিবেশ দূষণের জন্য দায়ী করেছেন তিনি। জ্যাঙ্ক ফুডের টন টন প্লাসটিকের প্যাকেট জমা হচ্ছে মাটিতে। তেল পুড়ে বাতাসে মিশছে বিষ। অার এসবটাই বহুজাতিক কোম্পানিগুলির দান। এখানেই শেষ নয় বন্দনার অভিযোগ এর পিছনে রয়েছে মনসানটোর চক্রান্ত।তারা চাইছে চাপে পড়ে বাধ্য বয়ে পাঞ্জাবের কৃষকেরা ধানচাষ বন্ধ করে দিয়ে কর্ন চাষ করুক। বন্দনার দাবি এদেশের খাদ্য সংস্কৃতির উপর হামলা করছে এই সংস্থাগুলি। অার এসব থেকেই চোখ সরাতে দূষণের জন্য ফসলের গোড়া পড়ানোর বিষয়টিকে বাড়িয়ে দেখান চলছে।
দিল্লির পরিবেশ দূষণ নিয়ে অালোচনায় সম্পূর্ণ অন্যমাত্রা যোগ করেছেন  বন্দনা শিবা। বিশিষ্ট এই বিজ্ঞানির দাবি ও অভিযোগ নিয়ে বিতর্ক থাকতে পারে। তবে তিনি ভাবনার খোরাক জুগিয়েছেন। কিন্তু অামাদের দেশের নীতি নির্ধারকেরা কি বন্দনার কথা কান দেবেন। মনে হয় না, কারন তাদের কানটা তো অন্যের হাতে ধরা!