খবরের চ্যানেলে খবর নিরুদ্দেশ

0
26
গত দুদিন ধরে খবরের চ্যানেল গুলোতে চোখ রেখে কেউ আর খবর দেখতে পাচ্ছেন না।সমস্ত চ্যানেল জুড়ে শুধু কালীপুজোর মন্ডপ,দীপাবলীর আড়ম্বর,দিকে দিকে আলোকসজ্জার নানা বাহার নিয়ে লাগাতার প্রচার।এরই মধ্যে কোন কালীপুজো কত ভাল হল তা নিয়ে প্রতিযোগিতারও আয়োজন করা হয়েছে চ্যানেল কতৃপক্ষের তরফে।পুরস্কার বিতরণও শুরু হয়েছে।খবরের চ্যানেলগুলো নিজেদের মত করে ঠিক করে নিচ্ছে কাকে বা কোন পুজোকে তারা সেরা ঘোষণা করবে।গত কয়েকদিন ধরে শুধু কালীপুজো,ধনতারাস,আর দেওয়ালীর বাইরে আর কোন খবর নেই খবরের চ্যানেল জুড়ে। অার এ রাজ্যে দশর্ক মানে শুধুই হিন্দুরা।
কালীপুজো বা দীপাবলি অথবা ধনতারাস নিয়ে কোন খবর হবে না আমরা তা বলি না কিন্তু খবরের চ্যানেল জুড়ে সারাদিন শুধু কালীপুজোর মন্ডব সজ্জা,তারাপীঠের পুরনো লোককথা,কালীঘাট ও দক্ষিণেশ্বরে লোকসমাগম আর মন্ডবে মন্ডপে বারোয়ারি পুজো প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণরই খবরের চ্যানেলের বিষয় হতে পারে না।খবরের চ্যানেলে দৈনন্দিন খবরকেও গুরুত্ব দিতে হয়।খবরের চ্যানেলগুলো খুলে রাখলে মনে হবে রাজ্যে এখন কোন কিছুই ঘটছে না।হাসপাতালে গিয়ে সাধারণ মানুষ আর হয়রানির মুখে পড়ছে না,সাধারণ মানুষের রোজকার জীবন যন্ত্রণার সব গল্পের যেন ইতি ঘটে গেছে।সব দুর্নীতি-দুরাচার যেন রাজ্য থেকে উধাও।অথচ মাত্র কয়েকদিন আগে মালদহে যে গ়ৃহবধূ গণধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন,যিনি পুলিশের সহায়তাটুকুও পাচ্ছিলেন না প্রথমদিকে কী অবস্থা তার,কেমন আছেন তিনি?কোথাও খবর নেই।৪৮ হাজার তেলেঙ্গানার অারটিসি বাস কর্মীদের ধর্মঘট ৩ সপ্তাহ ছাড়িয়ে গেছে। কোথায় সেই খবর? মিটিং মিছিলে অবরুদ্ধে শহর খবর হলেও রাস্তা জুড়ে প্যান্ডেল হওয়ায় মানুষের হয়রানি নিয়ে কোন চ্যানেলে খবর নেই।রাস্তা জুড়ে প্যান্ডেল হওয়ায় কত মুমূর্ষু রুগীর আ্যম্বুলেন্স হাসপাতালে পৌঁছুতে পারলো না তা নিয়ে কোথাও কোন খবর হয় না।এই যে এতদিনের ছুটি তাতে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালের কত ডাক্তার বিদেশে ঘুরতে চলে যান কত কত মানুষকে ভয়াবহ প্রাণ সংশয় ফেলে দিয়ে তা নিয়ে কোন খবর হয় না কখনও।যে কোন ধরনের বনধ্ই নাকি কর্মনাশা,রাজনৈতিক মিছিল কর্ম সংস্কৃতির বিরোধী আর এই এতদিন ধরে এই পুজো কেন্দ্রীক হুল্লোর আর মত্ততা নাকি কর্ম সংস্কৃতির অনুগামি।এর লাগাতার প্রচার আর বিস্তারকেই এখানকার চ্যানেলগুলো এখন ‘খবর’ বলে চালাচ্ছে।খবরের চ্যানেল খুলে খবর না দেখে কেউ যদি পুজো পরিক্রমা দেখতে চান তবে দেখুন,কিন্তু ভুল করেও খবর জানতে খবরের চ্যানেল খুলবেন না।খবরের চ্যানেল থেকে খবর এখন নিরুদ্দেশ।